এবার গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীদের নিয়ে বাজেটের মন্ত্রিসভার বৈঠক

প্রকাশিত: ৭:৪৩ পিএম, মে ১৭, ২০২০
  • শেয়ার করুন

আসছে বাজেট উপলক্ষে অনুষ্ঠেয় মন্ত্রিসভার বিশেষ বৈঠকে ৪৭ জন মন্ত্রীর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ১১ জন মন্ত্রীকে ডাকা হচ্ছে। মন্ত্রিপরিষদ সচিবসহ ১০ জন সচিব ও সিনিয়র সচিব উপস্থিত থাকবেন। সেভাবেই প্রস্তুতি নিচ্ছে সংসদ সচিবালয়। জাতীয় সংসদের উপসচিব মনিরা বেগম স্বাক্ষরিত এক চিঠি থেকে এসব তথ্য পাওয়া যায়।

মন্ত্রিসভায় প্রধানমন্ত্রী ছাড়া ২৫ মন্ত্রী, ১৯ প্রতিমন্ত্রী ও তিনজন উপমন্ত্রী রয়েছেন। কিন্তু দেশে করোনা মহামারি চলায় সবাইকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি বৈঠকে। এছাড়া বাজেট পেশ হবে সীমিত পরিসরে।

আগামী ১১ জুন (বৃহস্পতিবার) সংসদে বাজেট পেশ করা হবে। এ উপলক্ষে বাজেট পেশের আগে বরাবরের মতো সংসদ ভবনের মন্ত্রিসভাকক্ষে মন্ত্রিসভার বিশেষ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সম্ভাব্য দুপুর ১২টায় বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। বৈঠকের প্রস্তুতির জন্য সংসদের সংশ্লিষ্ট বিভাগে চিঠি দেয়া হয়েছে। চিঠি পাওয়ার পর সাধারণ ছুটির মধ্যেই কাজ করছে সংশ্লিষ্ট বিভাগ।

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, বৈঠকে উপস্থিত থাকার জন্য প্রধানমন্ত্রীসহ ১০ জন মন্ত্রী এবং একজন প্রতিমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানানো হবে। বৈঠকে মন্ত্রিপরিষদ সচিবসহ ১০ জন সচিব ও সিনিয়র সচিব উপস্থিত থাকবেন।

এছাড়া বৈঠককালে সহায়তা প্রদানের জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের মন্ত্রিসভা-বৈঠক সংশ্লিষ্ট চারজন, অর্থ বিভাগের দু-তিনজন এবং অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের ২৩ জন কর্মকর্তা উপস্থিত থাকবেন।

মন্ত্রিসভার বৈঠকটি সুষ্ঠুভাবে শেষ করার জন্য সংসদ ভবনে অবস্থিত মন্ত্রিসভাকক্ষে আসবাবপত্র, বিদ্যুৎব্যবস্থা, মাইক্রোফোন, পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন সরঞ্জাম এবং আনুষঙ্গিক ব্যবস্থা প্রস্তুত রাখার জন্য চিঠিতে বলা হয়েছে।

সংসদের একটি সূত্র জানায়, এই বিশেষ বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ছাড়াও স্বাস্থ্যমন্ত্রী, বাণিজ্যমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, খাদ্যমন্ত্রী, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মতো গুরুত্বপূর্ণ কয়েকজন মন্ত্রী থাকতে পারবেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সংসদের ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া গণমাধ্যমকে বলেন, ‘করোনার কারণে এবারের বাজেট অধিবেশন হবে স্বল্প পরিসরে। তাই মন্ত্রিসভার বৈঠকও হবে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীদের নিয়ে। এছাড়া সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সভায় উপস্থিত থাকতে হবে। সংসদে প্রবেশের আগে সবার তাপমাত্রা মাপা হবে। থাকবে স্যানিটাইজারও।’

জানা গেছে, আসন্ন (২০২০-২১) অর্থবছরের বাজেটের মূল আকার দাঁড়াতে পারে সাড়ে পাঁচ লাখ কোটি টাকা। ২০২০-২১ অর্থবছরে বাজেটে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) জন্য দুই লাখ পাঁচ হাজার ১৪৫ কোটি টাকার খসড়া প্রস্তাব ইতোমধ্যেই অনুমোদন করেছে পরিকল্পনা কমিশন, যা চলতি (২০১৯-২০) অর্থবছরের এডিপির তুলনায় ৬ শতাংশ বেশি।

উন্নয়ন বরাদ্দের মধ্যে সরকারের নিজস্ব অর্থ থেকে এক লাখ ৩৪ হাজার ৬৪৩ কোটি টাকা এবং বিদেশি সাহায্যের পরিমাণ ধরা হয়েছে ৭০ হাজার ৫০২ কোটি টাকা। আসন্ন বাজেটে করোনার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনীতি পুনরায় দাঁড় করানোর কর্মপরিকল্পনার পাশাপাশি অধিকতর গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে চলমান মেগা প্রকল্পগুলোয়।



সর্বশেষ খবর